বিশ্ববিদ্যালয় ভবনের পুরোটাই ছাত্রলীগের কার্যালয়!

  © টিডিসি ফটো

শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস রুমের সংকটের কারণে শিক্ষার্থীদের পড়তে হচ্ছে সেশন জটে। ক্লাস রুমের অভাব থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য রয়েছে পুরো একটি ভবন। রাজধানীর প্রাণ কেন্দ্র কলেজগেট এলাকায় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস। শিক্ষার্থীদের পদচারণায় ক্যাম্পাস সব সময় মুখর থাকলেও ক্লাস রুমের সংকট নিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে রয়েছে চাপা ক্ষোভ।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যলয়ের কাজী নজরুল ইসলাম হলের পাশে টিনের চালার চার কক্ষবিশিষ্ট একতলা একটি ভবনের পুরোটাই ছাত্রলীগের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। কার্যালয়ের সামনে ছাত্রলীগের বিশাল আকৃতির সাইনবোর্ড ও পোস্টারও টাঙানো রয়েছে। শাখা ছাত্রলীগের যাবতীয় কর্মকাণ্ড এখানেই পরিচালিত হচ্ছে। পূর্বে এই ভবন ল্যাব হিসেবে ব্যবহৃত হলেও দীর্ঘদিন ধরে এটি ছাত্রলীগের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। তবে অধিকাংশ সময়ই এই ভবন তালাবদ্ধ করে রাখা হয়।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কোন ছাত্র সংগঠনের ব্যক্তিগত কার্যালয় থাকার অনুমতি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবিধানে না থাকলেও দীর্ঘদিন ধরে শেকৃবি শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসে কার্যালয় খুলে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ক্যাম্পাসে যেকোন ধরণের প্রোগ্রামের মিটিং এখানেই করা হয়। তবে এতদিন শাখা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় সেখানে তেমন একটা কার্যক্রম হত না। শাখা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়ায় এখন সেখানে দলীয় বিচার থেকে শুরু করে দলীয় নেতাদের আড্ডা দেয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের এক শিক্ষার্থী জানান, কৃষি অনুষদের ক্লাস রুমের সংকট থাকায় আমাদের সেশন জটে পড়তে হচ্ছে। অনেক সময় ক্লাস রুম ফাঁকা না পেয়ে ক্লাসের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। অথচ ছাত্রলীগ পুরো একতলা বিল্ডিং নিয়ে তাদের কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে। শুনেছি এই বিল্ডিং আগে ব্যবহারিক ক্লাসের জন্য ব্যবহার করা হত। একতলা এই ভবনটি কৃষি অনুষদের ক্লাসের জন্য দেয়া হলে এই অনুষদের সেশনজট কমত।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কৃষি অনুষদের এক ছাত্রী বলেন, ক্লাসরুম সংকট আছে কিনা- সেটা বলতে পারব না। তবে আমাদের ল্যাব রুমে ক্লাস করতে হয়। বিষয়টা স্বাভাবিক না।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মিজানুর রহমান দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে জানান, সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পক্ষ থেকে এই কক্ষ দেয়া হয়েছে। ক্যাম্পাসে ছাত্র সংগঠনের কার্যালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী থাকতে পারে না বিষয়টি আমার জানা ছিল না। শেকৃবি ছাত্রলীগ সব সময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে কাজ করে। ক্যাম্পাসে আমাদের কার্যালয় থাকায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা আরও খুশি বলেও দাবি করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. ফরহাদ হোসাইন দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাদেশ অনুযায়ী ক্যাম্পাসে ছাত্র সংগঠনের কার্যালয় থাকার নিয়ম নেই। তবে শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য তাদের টিনের চালার একতলা ভবন দেয়া হয়েছে। কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ছাত্রলীগ সব সময় শিক্ষার্থীদের দাবি নিয়ে কথা বলে, শিক্ষার্থীদের সমস্যায় তাদের পাশে থাকে।  ‘শিক্ষার্থীদের নিয়ে কাজ করায় ছাত্রলীগকে কার্যালয় দেয়া হয়েছে’।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ ছাত্রলীগের কার্যালয়ের বিষয়ে ফোনে কোনো মন্তব্য করেননি। তিনি বলেন, এ বিষয়ে এখন কথা বলতে পারব না। অফিসে আসেন, সেখানেই কথা হবে। ক্লাস রুমের সংকটের বিষয়ে তিনি জানান, কৃষি অনুষদের ক্লাস রুমের কোন সংকট নেই। তথ্যগুলো ভুল।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ