বাকৃবিতেও নাসিরউদ্দিনকে চায় না শিক্ষার্থীরা

খোন্দকার নাসিরউদ্দিন  © টিডিসি ফটো

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) সদ্য সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন তার পূর্বের কর্মস্থল বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) বায়োটেকনোলজি বিভাগে যোগদানের জন্য আবেদন করেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে বায়োটেকনোলজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. শহিদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী সাব্বির হোসেন বলেন, খোন্দকার নাসিরউদ্দিন একজন দুর্নীতিবাজ লোক। এমনকি তার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারীর ঘটনাও আছে। আমি কখনই চাই না একজন দুর্নীতিবাজ, নারী কেলেঙ্কারীর সঙ্গে যুক্ত লোক প্রাণের এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের আসনে থাকুক। অচিরেই যেন তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হয় আমি তার জোর দাবি জানাচ্ছি।

ইশরাত সোমা নামে এক শিক্ষার্থী খোন্দকার নাসিরউদ্দিন বরাবর সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে লেখেন, বাকৃবির শিক্ষার্থীরাও আন্দোলন কম পারে না, ভালোই ভালোই বাকৃবি ছাড়বেন তা না হলে তীব্র আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে।

বিলাল ইসলাম মইনুল নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, খোন্দকার নাসিরউদ্দিন স্যারের বাকৃবিতে কাজটা কি? বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাকে অচিরেই অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হক।

বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো সম্বলিত একটি গাড়ি নিয়ে খোন্দকার নাসিরউদ্দিন তার আগের কর্মস্থল বাকৃবিতে কেন এসেছেন সেই প্রশ্ন তুলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মোর্শেদুল ইসলাম বলেন, পদত্যাগপত্র জমা দেবার পরেও উনি (খোন্দকার নাসিরুদ্দিন) কিভাবে বশেমুরবিপ্রবির পতাকা সম্বলিত এবং বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির জন্য ইস্যুকৃত গাড়ি নিয়ে পূর্বের কর্মস্থলে যোগদান করতে পারেন? সেই ক্ষমতা কি উনার আছে?

আরেক শিক্ষার্থী মো. আল-আমিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখেন, উনি (খোন্দকার নাসিরউদ্দিন) উনার মান সম্মান সম্পূর্ণটাই বিসর্জন দিয়ে এসেছেন। এখন বাকৃবিতে এসে এখনাকার সুনাম, মান সম্মান নষ্ট করার পায়তারা করছেন। বাকৃবির মান সম্মানের স্বার্থে তাকে দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অব্যাহতি দেয়া হোক।

উল্লেখ্য, বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের দীর্ঘ ১২ দিনের আন্দোলনের পর সোমবার পদত্যাগ করেছেন বশেমুরবিপ্রবি উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন। এর পরদিনই তিনি তার পূর্বের কর্মস্থল বাকৃবিতে যোগদানের জন্য আবেদন করেন।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ